কিভাবে আপনার ভিডিও, পেজ বা পোস্ট প্রমোট বা বুস্ট করবেন

আসসালামু আলাইকুম প্রিয় পাঠক জমজম আইটির পক্ষ থেকে আপনাকে সু-স্বাগতম। আপনি নিশ্চয়ই অনলাইনে কিভাবে আপনার ভিডিও, পেজ বা পোস্ট প্রমোট বা বুস্ট করা যায় তা জানার জন্যই আমাদের এই সাইটটিতে এসেছেন। হ্যাঁ আজকে আমি অনলাইনে কিভাবে আপনার ভিডিও, পেজ বা পোস্ট প্রমোট বা বুস্ট করা যায় সেগুলো বিষয় নিয়ে আলোচনা করব। 
ফেসবুক একাউন্ট রেস্ট্রিক্টেড হলে কি করতে হবে

পৃথিবীর অনলাইন মার্কেটিং এর সবচেয়ে বড় মাধ্যম হচ্ছে ফেসবুক । ছোট, মাঝারি বা বড় সব ধরনের বিজনেসেই অনলাইন মার্কেটিং করলে অধিকাংশেরই অন্যতম প্রধান মার্কেটিং প্লাটফরম হচ্ছে ফেসবুক । সুতরাং ফেসবুক মার্কেটিং মানেই আমাদের দেশে ফেসবুকে পেইড এডস যা বুস্টিং হিসবেই সবচেয়ে বেশি পরিচিত । 

ফেসবুক একাউন্ট রেস্ট্রিক্টেড হলে কি করতে হবে

ফেসবুক একাউন্ট রেস্ট্রিক্টেড হলে নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করুন:

রেস্ট্রিকশনের কারণ নির্ণয় করুন। ফেসবুক একাউন্ট রেস্ট্রিক্ট করার জন্য বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে:
  • ফেসবুকের কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ডস লঙ্ঘন করা।
  • বারবার রিপোর্ট করা।
  • সন্দেহজনক কার্যকলাপ।
  • ভুয়া বা জালিয়াতি একাউন্ট।
💕আপনি যদি জানেন না যে আপনার একাউন্টটি কেন রেস্ট্রিক্ট করা হয়েছে, তাহলে ফেসবুকের কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ডস পড়ুন। এটি আপনাকে রেস্ট্রিকশনের সম্ভাব্য কারণগুলি সম্পর্কে ধারণা দেবে।

💕রেস্ট্রিকশনের জন্য দায়ী বিষয়গুলি অপসারণ করুন। আপনি যদি জানেন যে আপনার একাউন্টটি কেন রেস্ট্রিক্ট করা হয়েছে, তাহলে সেই বিষয়গুলি অপসারণ করুন। উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি কোনো নিয়ম লঙ্ঘন করে থাকেন, তাহলে সেই পোস্ট বা কমেন্টটি মুছে ফেলুন।

💕ফেসবুকের সাথে যোগাযোগ করুন। আপনি যদি রেস্ট্রিকশনের কারণগুলি অপসারণ করেন এবং আপনার একাউন্টটি পুনরুদ্ধার করতে চান, তাহলে ফেসবুকের সাথে যোগাযোগ করুন। আপনি ফেসবুকের ওয়েবসাইটে একটি রিপোর্ট জমা দিতে পারেন।

💕ফেসবুকের সাথে যোগাযোগ করার সময়, আপনার একাউন্টটি কেন রেস্ট্রিক্ট করা হয়েছে তা ব্যাখ্যা করুন। আপনি যে বিষয়গুলি অপসারণ করেছেন তাও উল্লেখ করুন। আপনার অনুরোধে সহায়তা করার জন্য ফেসবুকের দলটি আপনার সাথে কাজ করবে।

💕ফেসবুক একাউন্ট পুনরুদ্ধার করার জন্য আপনার সময় নিতে পারে। ধৈর্য ধরুন এবং ফেসবুকের প্রতিক্রিয়া জানানোর জন্য অপেক্ষা করুন।

এখানে কিছু টিপস রয়েছে যা আপনাকে ফেসবুক একাউন্ট রেস্ট্রিকশন এড়াতে সাহায্য করতে পারে:
  • ফেসবুকের কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ডস মেনে চলুন।
  • আপনার বন্ধুদের এবং পরিবারের সাথে আপনার একাউন্টের নিরাপত্তা সম্পর্কে কথা বলুন।
  • সন্দেহজনক কার্যকলাপ সম্পর্কে সচেতন থাকুন।
যদি আপনি মনে করেন যে আপনার একাউন্টটি ভুলভাবে রেস্ট্রিক্ট করা হয়েছে, তাহলে ফেসবুকের সাথে যোগাযোগ করুন।

ফেসবুকের মাধ্যমে বিজনেস করতে চাইলে আপনাকে একটা পেইজ খুলতে হবে । যেখানে আপনার বিজনেস রিলেটেড কন্টেন্ট অর্থাৎ ছবি বা ভিডিও দিতে হবে । যেই কন্টেন্টগুলোর নিচেই আমরা দেখতে পাই Boost লেখা ।

পোস্ট বুস্ট করুন ৬৭৫ টাকা থেকে শুরু

কি কি থাকছে এই লেখায় তার সূচিপত্রঃ কিভাবে আপনার ভিডিও, পেজ বা পোস্ট প্রমোট বা বুস্ট করবেন

  • বুস্ট কি? 
  • প্রমোট কি? 
  • কিভাবে ফেসবুক পেজকে গুগলের ১ম পেজে আনা যাবে?
  • বুস্ট ও প্রমোটের ব্যসিক পার্থক্য কি? 
  • বুস্ট করা ভাল হবে নাকি প্রমোট করা ভাল হবে? 
  • রিচ এর ব্যপার টা কি?? 
  • বেশিদিন বুস্ট করলে বেশি রিচ হবে? 
  •  টার্গেট বুস্ট কি?
  •  কিভাবে টার্গেট কাস্টমারের কাছে পৌঁছাব? 
  •  বেশি বাজেট হলেই কি বেশি সেল হবে? 
  • ফেসবুকে বুস্ট করতে বা এড দিতে কি কি লাগে?
  • আপনার পেইজ বা এড একাউন্ট রেস্ট্রিক্টেড হয়ে যাওয়ার কারন।
  • আপনার পেইজ বা এড একাউন্ট রেস্ট্রিকশন থেকে  কিভাবে সেইফটি রাখবেন? 

আজ আমরা আপনার প্রোডাক্ট, পোস্ট, সার্ভিস ফেসবুকে বা গুগোলে প্রোমোট বা বুস্ট নিয়ে সহায়তা করার জন্য প্রস্তুত । আসুন জেনে নিই বুস্ট/ প্রমোটের আগে কি কি বিষয়গুলো জানা অত্যাবশ্যকঃ 

বুস্ট কি? 

বুস্ট হল একটা নির্দিষ্ট পোস্ট/ কন্টেন্ট ফেসবুক ব্যবহারকারীদের কাছে পৌঁছে দেওয়া, অর্থাৎ যারা ফেসবুক ব্যবহার করে, তাদের নিউজফিডে বুস্টকৃত পোস্ট টি দেখা যাবে । 

বাজেট অনুযায়ী একটা নির্দিষ্ট সংখ্যক মানুষের কাছে পোস্ট টি পৌঁছাবে । বুস্ট এ আপনার পোস্ট টি ব্যবহারকারীদের নিউজফিডে শো করবে । বুস্ট করা হয় মূলত সেল বৃদ্ধির জন্য । 

প্রমোট কি? 

প্রমোট হল আপনার পেজ টা একটা নির্দিষ্ট সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছাবে । ব্যবহারকারীদের নিউজফিডে আপনার হোম পেজ শো করবে । 

কিভাবে ফেসবুক পেজকে গুগলের ১ম পেজে আনা যাবে?

এজন্য আপনার যেটা করতে হবে, পেইজের এমন একটা নাম রাখা যা বহুবার সার্চ হয় তবে এর মত আর পেইজ নেই। 

তারপর লক্ষ্য রাখতে হবে পেইজের সেটিংসে যাতে পাবলিক থাকে, আর কোনো রেস্ট্রিকশন না থাকে। যেন সারচ ইন্জিনে আসে। তারপরের যই বিষয়টা প্রতিটি পোস্ট ও ভডিও এর একটা করে টাইটেলদেয়া, ক্রিয়েটর স্টুডিতে গিয়ে তা,সহজেই করা যায়।

এটা হচ্ছে আপনার কাজ। তারপর গুগুল সেটা সো করবে তার বিভিন্ন নিজস্ব ক্রাইটেরিয়া অনুযায়ী। যেমন ধরুন, সবচেয়ে বেশি বার দেখা বস্তই আগে দেখায় গুগুল। তারপর যেটা দেখে, প্রথম পাতায় দেখানোর পর সবচেয়ে বেশিবার গুগুল থেকে যেটা দর্শকের কাছে গৃহীত হয়েছে। ইত্যাদি।

আর পেইড ওয়ে ও কার্যকর ওয়ে হচ্ছে, গোডেডি থেকে একটা ডোমেইন কিনে ফেসবুক পেইজের নামে সেটার মধ্যে ফেসবুক পেইজ কে হোস্ট করিয়ে পেইজকে এলটা ওয়েবসাইট বানিয়ে নিন৷ 

তারের গুগুলের এড ব্যবহার করে আপনার রিলেটিভ সার্চের সাথে বুস্ট করুন৷ গুগুল তখন ওই কি ওয়ার্ডগুলো দেখানোর সময় আপনারটা প্রথম দেখাবে লিখা থাকবে, Ad. আশা করি উত্তরটা পেয়েছেন ।

বুস্ট ও প্রমোটের ব্যসিক পার্থক্য কি? 

বুস্ট শুধু মাত্র নির্দিষ্ট পোস্ট/ কন্টেন্ট( ইমেজ, ভিডিও, অ্যানিমেশন, লিখা) ব্যবহারকারীদের কাছে পৌঁছাবে । আপনি যদি কোন প্রোডাক্ট সেল করতে চান, তাহলে সে প্রোডাক্ট এর পোস্ট টা বুস্ট করবেন যাতে নির্দিষ্ট সংখ্যক ব্যবহারকারী প্রোডাক্ট এর পোস্ট দেখে এবং কিনতে আগ্রহী হয় । 

বুস্ট মূলত সেল বৃদ্ধির জন্য করা হয় । অপর দিকে প্রমোট হল আপনার হোম পেজ টা ব্যবহারকারীদের নিউজফিডে পৌঁছানো । ব্যবহারকারীর নিউজফিডে আপনার হোম পেজ শো করবে এবং লাইক এর অপশন থাকবে । প্রমোটের মাধ্যমে আপনার পেজ এ লাইক বাড়বে । 

বুস্ট করা ভাল হবে নাকি প্রমোট করা ভাল হবে? 
আমাদের মতে পেজ এ ৫০০ লাইক হলেই প্রমোট করার আর দরকার নাই, শুধু বুস্ট করবেন । ধরুন আপনার পেজ এ ১০০০০ লাইক আছে, তারপরও আপনি যদি বুস্ট না করেন, তাহলে আপনার পোস্ট টি মানুষের কাছে পৌঁছাবে না । সামান্য অর্গানিক রিচ হতে পারে । ১০০০০ লাইক থাকলে হয়ত এর ৪ রিচ হবে । 

আবার আরেকজনের পেজ এ ২০০ লাইক আছে, সে যদি কন্টিনিউ তার নতুন পোস্ট গুলো বুস্ট করে, তাহলে তার রেগুলার একটা সেল আসবে, তার নতুন প্রোডাক্ট গুলো সে তার নির্দিষ্ট কাস্টমারকে দেখাতে পারছে । 

সো বুঝতেই পারছেন, কোনটা ভাল হবে । তাছাড়া বুস্ট করলেও আপনার কিছু লাইক আসবে পেজ এ, যেগুলো একদম রিয়েল লাইক । আমরা কোন লাইক বিক্রয় করি না, তাই কাইন্ডলি কেউ এত লাইক কত, এমন প্রশ্ন করবেন না । বিক্রিয় করা লাইক অধিকাংশই ফেক হয়, যেটা কোন কাজে আসে না অনেকেই বলে প্রমোট করলে পেজ পরিচিতি পায়, এটা ভুল কথা । 

আপনার প্রোডাক্ট কোয়ালিটি যদি ভাল হয়, আপনি এমনিতেই পরিচিতি পাবেন । তাছাড়া আপনি যদি বুস্টের মাধ্যমে রেগুলার আপনার প্রোডাক্ট গুলো কাস্টমারদের দেখান, একজন গ্রাহক যখন আপনার নতুন নতুন প্রোডাক্ট এর ছবি তার নিউজফিডে কয়দিন পরপর দেখবে, একদিন সে নিজ থেকেই পেজ এ ঢুকে দেখবে । 

রিচ এর ব্যপার টা কি?? 

এবার আসুন জেনে নিই রিচ মানে তো পৌঁছানো, এটা সবাই জানি । আপনি যখন টাকা দিয়ে আপনার পোস্ট বুস্ট দিবেন, তখন আপনার পোস্ট নির্দিষ্ট সংখ্যক ব্যবহারকারীদের কাছে পৌঁছাবে । এটাই হল রিচ । 

বেশিদিন বুস্ট করলে বেশি রিচ হবে? 

রিচ টা আসলে দিনে সাথে সম্পর্কযুক্ত না, রিচ এর সম্পর্ক টাকা এর সাথে । ধরুন আপনি বুস্টের জন্য ৩ দিনে ৩ ডলার বাজেট করলেন, আরেকজন ১ দিনেই ৩ ডলার বাজেট করল, ২ জনের রিচ কিন্তু প্রায় সমানই হবে । 

আপনি তিন দিন করতেছেন বলে আপনার বেশি হবে না । আপনি ডেইলি বাজেট যত বাড়াবেন, রিচ তত বাড়বে ।

ফেসবুক একাউন্ট রেস্ট্রিক্টেড হলে কি করতে হবে

ফেসবুক একাউন্ট রেস্ট্রিক্টেড হলে নিচের পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করুন:

রেস্ট্রিকশনের কারণ খুঁজুন। ফেসবুকের নীতিমালা অনুযায়ী, কোন কোন কারণে একাউন্ট রেস্ট্রিক্ট করা যেতে পারে তা জানুন। আপনার একাউন্টের ক্ষেত্রে কোন নীতিমালা লঙ্ঘন হয়েছে তা খুঁজে বের করুন।

রেস্ট্রিকশন অপসারণের জন্য ফেসবুকের সাথে যোগাযোগ করুন। ফেসবুকের "Report a problem" অপশন ব্যবহার করে আপনার একাউন্টের রেস্ট্রিকশনের বিষয়ে অভিযোগ করুন। অভিযোগ করার সময়, রেস্ট্রিকশনের কারণ এবং আপনি কীভাবে ভবিষ্যতে নীতিমালা মেনে চলবেন তা ব্যাখ্যা করুন।

রেসপন্সের জন্য অপেক্ষা করুন। ফেসবুক আপনার অভিযোগটি পর্যালোচনা করবে এবং রেস্ট্রিকশন অপসারণ করবে কিনা তা নির্ধারণ করবে। রেসপন্স পেতে কয়েক দিন সময় লাগতে পারে।

ফেসবুক একাউন্ট রেস্ট্রিক্টেড হওয়ার কিছু সাধারণ কারণ হল:
  • স্প্যাম বা অপ্রয়োজনীয় পোস্ট করা
  • অন্যদের বিরক্ত করা বা হুমকি দেওয়া
  • আপত্তিকর বা ঘৃণ্য ভাষা ব্যবহার করা
  • নীতিমালা লঙ্ঘন করে অ্যাড চালানো
আপনি যদি এই কারণগুলির মধ্যে কোনটিতে জড়িত না থাকেন তবে আপনার একাউন্টের রেস্ট্রিকশন অপসারণের সম্ভাবনা বেশি।

টার্গেট বুস্ট কি?

 একটু মনযোগ দিয়ে পড়ুন । ধরুন বাংলাদেশে ২ কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারী রয়েছে । এর মধ্যে ১৩ বছরের বাচ্ছা রয়েছে আবার ৬০ বছরের বৃদ্ধও রয়েছে । রিকশাচালক রয়েছে, আবার কোন কোম্পানির সিইও রয়েছে । 

এই ২ কোটির মধ্যে আপনার পোস্ট যাবে ধরুন বাজেট অনুযায়ী ১৫০০০ মানুষের কাছে । সবাই কি আপনার প্রোডাক্ট কিনবে/ সবাই কি আপনার কাস্টমার? নিশ্চই না, একজন রিকশাচালক অথবা ১৩ বছরের বাচ্ছা নিশ্চই আপনার প্রোডাক্ট কিনবে না । 

সো আপনার পোস্ট কি রিকশাচালক বা ১৩ বছরের বাচ্ছার কাছে পৌঁছিয়ে কোন লাভ আছে? নাকি লস? অবশ্যই লস, কারণ প্রত্যেকটা রিচের জন্য আপনার টাকা খরচ হচ্ছে । আপনি নিশ্চই চান যেন আপনার পোস্ট টা এমন মানুষের কাছে পৌঁছায়, যাদের কিনার সামর্থ্য আছে বা যাদের ওই প্রোডাক্ট টা দরকার । 

কিভাবে টার্গেট কাস্টমারের কাছে পৌঁছাব? 

এখন আপনার পোস্টটি ২ কোটি মানুষের যে কোন কারও কাছে পৌঁছাতে পারে । এখন আপনি এই ২কোটি সংখ্যাকে যত ন্যারো করবেন, ততই নির্দিষ্ট হবে আপনার টার্গেট কাস্টমার । 

আপনি একটি পোস্ট বুস্ট করবেন, আপনি শুরুতে একটা এজ লিমিট দেন, আপনার যারা কাস্টমার, তাদের বয়স কত হবে? ধরুন, ১৮- ৪০ বছর । বয়সের লিমিট দেওয়ার পর সংখ্যাটা ১ কোটি হয়ে গেল । এবার ধরুন, আপনার যারা কাস্টমার, তারা মেয়ে হবে । এবার জেন্ডার দিন, ফিমেল । 

তাহলে সংখ্যাটা হয়ে গেল ৫০ লাখ । এবার ধরুন আপনি বেবি আইটেম সেল করেন, সুতরাং আপনি চিন্তি করলেন, যাদের বেবি আছে তাদের কাছে পোস্টটি পৌঁছাতে । এবার আপনি অডিয়েন্স দিলেন, যাদের ১- ২ বছর/ ৫- ৬ বছরের বেবি আছে । তাহলে ওই ৫০ লাখের মধ্যে যাদের বেবি আছে, তাদের কাছেই আপনার পোস্ট পৌঁছাবে । 

আপনি গিফট আইটেম সেল করেন, সুতরাং আপনি এমনভাবে টার্গেট করতে পারেন যাদের ফ্রেন্ড এর আগামী ১ সপ্তাহে বা আগামী এক মাসে জন্মদিন আছে অথবা যাদের আগামী এক মাসে অ্যানিভার্সারী আছে । তাহলে ওই সংখ্যাটা চলে আসবে ১০ লাখে । এই ১০ লাখ আপনার অডিয়েন্স, ধরেন এদের বেশিরভাগই আপনার কাস্টমার হওয়ার সম্ভাবনা আছে । 

আপনাকে আগে আপনার কাস্টমার চিনতে হবে । আপনার কাস্টমার কারা হবে, তাদের বিহ্যাবিওয়ার কেমন হবে, তারা কি খেতে পছন্দ করে, কেমন গান পছন্দ করে, কেমন মুভি পছন্দ করে, তারা কি ছাত্র নাকি জব হোল্ডার, নাকি ব্যবসায়ী, তারা কি সিঙ্গেল নাকি ইন অ্যা রিলেশন নাকি অ্যাঙ্গেজড, নাকি বিবাহিত নাকি ডিভোর্সি । 

এমন শতাধিক ইন্টারেস্ট দিয়ে আপনার টার্গেট অডিয়েন্স সেট করতে পারবেন । মনে রাখবেন, রিচ বেশি মানেই ভাল বুস্ট না, যারা জীবনেও অনলাইন থেকে কিনবেনা, এমন ১০০০০ জনের কাছে পৌঁছানোর চাইতে যারা কিনবে এমন ১০০ জনের কাছে পৌঁছানো বেটার । কারণটা নিশ্চই বুঝতে পেরেছেন ।

বেশি বাজেট হলেই কি বেশি সেল হবে? 

এক কথায় নাহ, সেল টা অনেকগুলো বিষয়ের উপর ডিপেন্ড করে । আপনার প্রোডাক্টটি কতটা ইউনিক? বাসার নিচের দোকানে যে জিনিসটা অ্যাভেইলেবল, সে জিনিসটা নিশ্চই ডেলিভারি চার্জ দিয়ে আপনার থেকে কিনবে না । 

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল, ইমেজ কোয়ালিটি । একটা জিনিস ভাবুন, একজন কাস্টমার কিন্তু প্রোডাক্ট ফিজিক্যালি দেখতেছেনা, শুধু আপনার ইমেজটা দেখেই কিনার সিদ্ধান্ত নিবে ।

আবার আপনার ইমেজটা এমন অ্যাট্রাকটিভ হতে হবে, যেন ব্যবহারকারী দ্রুত নিউজফিড স্ক্রল করার সময় তার চোখ আপনার পোস্ট এ আটকে যায় এবং সে স্ক্রলিং থামিয়ে আপনার ইমেজগুলো দেখতে বাধ্য হয় ।

সুতরাং সেল বাড়ানোর জন্য আগে ইমেজ কোয়ালিটি টা ঠিক করুন, এটা আমি সবাইকে বলি । ইমেজ ভাল না হলে সেল ভাল নাও হতে পারে । আরেকটা বিষয়, ইমেজের মধ্যে টেক্সট যত কম দিবেন, রিচ তত বেশি হবে ।

টেক্সট দিয়ে ইমেজকে জগাখিচুড়ি করে ফেলবেন না । আরেকটা বিষয়, ইমেজের মধ্যে কোন ব্র্যান্ড নাম বা কোন বডি পার্ট থাকলে ফেসবুক সে পোস্ট ডিলেট দিয়ে দিবে আইডি সহ পেজ ডিজেবল করে দিতে পারে ।

সুতরাং এমন কোন ইমেজ দেওয়া পোস্ট বুস্ট দিবেন না । ক্যাপশন অবশই শর্ট দেওয়ার চেষ্টা করবেন, যত ছোট ক্যাপশন, তত ভাল রেসাল্ট পাবেন । 

এবার আমাদের বিষয়ে বলিঃ আমরা একটি আইটি কোম্পানী, কোম্পানীর যে রুলস বা নিয়ম আছে সে মোতাবেক বুস্ট করে দেই, আগে এডমিন বা আমরা বুঝার চেষ্টা করি এই প্রোডাক্টের সম্ভাব্য টার্গেট কাস্টমার কারা । সে অনুযায়ী বুস্ট করি ।

আবারও বলি, আমাদের কোম্পানী কোন প্রকার লাইক বিক্রয় করে না । নির্দিষ্ট বাজেট দিয়ে প্রমোট করতে পারবেন, তবে লাইকের সংখ্যা নির্দিষ্ট না । ১০০০ টাকার প্রমোটে৬০০/৭০০ লাইক আসতে পারে এবং সেগুলো রিয়েল লাইক । 

আপনার পেজ এ ৫০০ লাইক থাকলে প্রমোট না করে রেগুলার বুস্ট করুন, এটা কোম্পানী মতামত । কোম্পানী সম্ভাব্য টার্গেট অডিয়েন্স দিয়ে বুস্ট করে দিবে ।

সেলের গ্যারান্টি কেউ দিতে পারবে না । আরেকটা জানানোর বিষয় হল, বাংলাদেশ সরকার সকল স্যোশাল মিডিয়া অ্যাড এর উপর ১৫ ভ্যাট আরোপ করেছে জানুয়ারি ২০২০ থেকে । তাই বাজেটের সাথে ১৫ ভ্যাট যোগ হবে । 

অমুক অ্যাজেন্সি অত টাকায় করে, আপনার বেশি কেন? আমার বেশি না, ফেসবুক যা নেয়, আমরা তার সাথে সামান্য সার্ভিস চার্জ রাখি । যেখানে ডলার রেট-৮৫/৮৬ টাকা, সেখানে৭০/৭৫ টাকা ডলার রেট এ কিভাবে করে সেটা আমার বোধগম্য নয় ।

আর একটা বিষয় মনে রাখতে হবে যে, ডলার রেট সব সময় আপডাউন করে । সুতরাং বুস্ট করার পূর্বে যে ডলার রেট থাকবে সেই ডলার রেট অনুযায়ী কোম্পানী আপনার সাথে আলোচনা করে প্যাকেচ নিবেন । সফটওয়্যারের মাধ্যমে এখন হাজার হাজর লাইক নেওয়া যায় । তাই সস্তার তিন অবস্থায় না যাওয়ার অনুরোধ রইল ।

আমরা বিস্তারিত বলার চেস্টা করেছি, যেন আপনার বুঝে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন । এবার আপনি অন্য কারও কাছ থেকেও করাতে পারেন, তবে গাজাখুরি অফার না নেওয়ার অনুরোধ রইল । 

আমাদেরকে দিয়ে বুস্ট করানোর জন্য আপনার পেজ- এ প্রথমে আমাদের এডমিনকে এডিটর বানিয়ে দিবেন ।

তারপর যে পোস্ট টি বুস্ট করতে চাচ্ছেন, সেটির লিংক এডমিনকে মেসেজ করবেন । বুস্ট করার পর ২৪ ঘন্টা ফেসবুকের রিভিউতে থাকে । তবে নরমালি২০/২৫ মিনিটের মধ্যে অ্যাপ্রুভ হয়ে যায় ।

আপনার বাজেটের মধ্যে আপনার পছন্দের ওয়েবসাইট করতে আমার সাথে যোগাযোগ করুন । আমরা কেন স্পেশাল বর্তমানে বাংলাদেশে বিভিন্ন পরিসরে অনেক আইটি প্রতিষ্ঠান আছে যারা আইটি সন্পর্কিত অনেক সেবা প্রধান করে থাকে ।

কিন্তু আমরা সবার কথা চিন্তা করে আমাদের ক্লায়েন্টদের বিশেষ কিছু সুবিধা দিয়ে থাকি । যেমন আমরা সর্বনিন্ম মূল্যে সর্বোচ্চ সেবা দান করি । ঠিক আপনার মনের মত করে আমরা সফটওয়্যার অথবা ওয়েবসাইট কাস্টোমাইজ করি ।

আমরা ক্লাইন্টদের কাজের প্রতিদিনের আপডেট প্রতিদিন দেই । ক্লায়েন্টদের সুবিধা অনুযায়ী আমরা ইনস্টলমেন্ট এ পেমেন্ট প্রধানের সুযোগ দিয়ে থাকি ।

কাজের শেষে উপযুক্ত ট্রেনিং এর মাধ্যমে আমরা কাজ বুঝিয়ে দিয়ে থাকি । যেকোনো সমস্যায় আমরা সরাসরি সেবা প্রদান করি ।

ফেসবুকে বুস্ট করতে বা এড দিতে কি কি লাগে?

বাংলাদেশ থেকে ফেসবুকে এড দিতে হলে আপনার একটি ডুয়েল কারেন্সি কার্ড লাগবে যেইটা প্রধান বলেই বাংলাদেশে বুস্টিং সার্ভিস দেয়া অনেক এজেন্সি বা কোম্পানি গড়ে উঠেছে ।

একটা ডুয়েল কারেন্সি কার্ড হাতে পেয়ে ডিজিটাল মার্কেটার হয়ে যাওয়া এই সকল ব্যক্তি দেশে ডিজিটাল মার্কেটিং এর নামে যে বুস্টিং কালচার গোড়ে তুলেছে তাতে ডিজিটাল মাররেকেটিং ব্যপারটা অনেক সস্তা হয়ে পরছে ।

 যাই হোক বুস্ট করার জন্যে আপনার ডুয়েল কারেন্সি কার্ড থাকলে আপনি নিজেই এড দিতে পারবেন যদি খুব বেশি প্রফেশনালি চিন্তা না করেন । বাংলাদেশে কয়েকটি ব্যাংক প্রিপেইড ডুয়েল কারেন্সি কার্ড দিচ্ছে । যেমনঃ Eastern Bank Ltd ( EBL ) Midland Bank, City Bank সহ আরও কয়েকটি রয়েছে । 

আপনার একটি পাসপোর্ট থাকেই আপনি এই সকল ব্যংক থেকে প্রিপেইড কার্ড নিয়ে ডলার ব্যবহার করতে পারবেন ।

আপনার পেইজ বা এড একাউন্ট রেস্ট্রিক্টেড হয়ে যাওয়ার কারন।

বাংলাদেশে অনলাইন বিজনেসগুলোর  খুব কমন কিছু মিস্টেক এর কথা বলব যেগুলোর কারণে তাদের একাউন্ট রেস্টিক্টেড হয়ে যায় ।
  •  গ্লোবাল ব্রান্ড এর এসেট বা কন্টেন্ট ব্যবহার করা। 
  •  ইমেজে কম্পেরিজন দেখানো বা বেশি বডিপার্ট দেখানো।
  • ডিস্ক্রিপশনে কমিউনিটি ভায়লেন্স।
  • পেইজে অথেক্টিঙ্ক নয় এমন লিংক শেয়ার করা ।
  • রেস্ট্রিকশন রয়েছে এমন আইডি এড একাউন্ট বা পেইজে রাখা ।
  • পার্সোনাল একাউন্ট থেকে ভুলভাল নিউজ শেয়ার করা ।
  • কুপন দিয়ে এড দেয়া বা উল্টা পালটা পেমেন্ট মেথড এড করা ।

আপনার পেইজ বা এড একাউন্ট রেস্ট্রিকশন থেকে  কিভাবে সেইফটি রাখবেন? 

  • ভেরিফাইড বিজনেস ম্যনেজার ব্যবহার করুন। 
  • যেই আইডি দিয়ে এড চালাবেন সেইটার 2 Factor Authentication অন করে রাখুন ।
  • আপনার পেইজ এ সব সময় নিজের কন্টেন্ট ব্যবহার করার চেষ্টা করুন ।
  • বিজনেস পেইজ এবং আইডি থেকে উলটা পাল্টা লিংক শেয়ার করা থেকে বিরত থাকুন।
  • এক এড একাউন্ট থেকে খুব বেশি পেইজের এড দেয়া থেকে বিরত থাকুন ।

ফেসবুকের কিছু নীতিমালা ও গাইডলাইন রয়েছে যেগুলোকে Privacy Policy এবং Community Standerd বলে যেগুলো মেনে চলুন।

আমাদের ওয়েবসাইট এবং অন্যান্য সার্ভিসসমূহ( Web Design and Development) 

  •  কোম্পানী ওয়েবসাইট 
  •  শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট 
  •  ব্যাক্তিগত ওয়েবসাইট 
  •  ব্লগ ওয়েবসাইট 
  •  ট্রেইনিং প্রতিষ্ঠান/ কোচিং সেন্টার ওয়েবসাইট 
  •  ই- কমার্স ওয়েবসাইট 
  • নিউজপেপার ওয়েবসাইট 
  •  ট্যুর/ পিকনিক/ রিসোর্ট ওয়েবসাইট 
  • হোটেল ও পর্যটন ওয়েবসাইট
  •  ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ওয়েবসাইট 
  •  ফার্নিচার কোম্পানী ওয়েবসাইট 
  •  রিয়েল ইস্টেট কোম্পানী ওয়েবসাইট 
  •  ইঞ্জিনিয়ারিং/ টেকনিক্যাল/ কন্সট্রাকশন কোম্পানী ওয়েবসাইট 
  •  গ্রুপ অব কোম্পানী ওয়েবসাইট 
  •  বায়িং হাউজ/ গার্মেন্টস এসোসিয়েশন ওয়েবসাইট 
  •  ইন্টেরিয়র ডিজাইন কোম্পানী ওয়েবসাইট 
  •  মার্কেটিং এন্ড ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ওয়েবসাইট 
  •  ল- ফার্ম ওয়েবসাইট 
  •  হাসপাতাল/ ক্লিনিক ওয়েবসাইট 
  •  ফাইনেন্সিয়াল এসোসিয়েশন ওয়েবসাইট 
  •  এনজিও এবং সামাজিক কার্যক্রম সংবলিত ওয়েবসাইট 
  •  অকশন ওয়েবসাইট 
  •  হাসপাতাল ও ক্লিনিক ওয়েবসাইট

ডলার = ১৩৫ টাকা (প্রতি ডলার ১০৬ টাকা + ১৫% ভ্যাট (সরকারি ভাবে) + সার্ভিস চার্জ

যেহেতু ডলার রেট প্রতিদিন পরিবর্তন হয়, সেহেতু সেই দিনের  ডলার রেট হিসেবে  হিসাব করে চুক্তি করুন।

আমাদের সার্ভিসসমূহঃ

💞💞 Post/ Product/ Service Promote

💞💞 Post Engagement (পোস্টের Likes, Comments, Shares বাড়ান)

💞💞 Messenger Ad (Potential Customers থেকে মেসেজ পাবেন)

💞💞 Brand Awareness

💞💞 Post Reach

💞💞 Video Views

💞💞 Website Traffic

______________________________________________

আমাদের প্যাকেজঃ

👪👪১ থেকে দিন -মিনিমাম $5 = ৬৭৫ টাকা

👪👪১ থেকে দিন -মিনিমাম $10 = ১৩৫০ টাকা

👪👪১ থেকে ১০ দিন - মিনিমাম $20 = ২৭০০ টাকা

👪👪১ থেকে ৩০ দিন - মিনিমাম $50 = ৬৭৫০টাকা

👪👪 এছাড়াও আপনি নিজের মতো করে প্যাকেজ বানিয়ে নিতে পারেন

আমরা দিচ্ছিঃ

💞💞  পেজ প্রমোট বা পোস্ট বুস্টের সুবিধা।

💞💞  টার্গেট কাস্টমারকে বিজ্ঞাপন দেখানোর সুবিধা।

💞💞  লোকেশন অনুসারে বিজ্ঞাপন দেখানোর সুবিধা।

💞💞  বয়স, লিঙ্গ, ক্যাটাগরি সিলেক্ট করে বিজ্ঞাপন দেখানোর সুবিধা।

💞💞  অল্প সময়ে অধিক মানুষের কাছে আপনার বিজ্ঞাপন পৌঁছানোর সুবিধা।।

💞💞  বিজ্ঞাপন শেষে বিজ্ঞাপন রিপোর্ট দেখার সুবিধা।

আপনি আমাদের যদি নির্দেশনা ফলো করে আপনার ভিডিও, পেজ বা পোস্ট প্রমোট বা বুস্ট করে থাকেন তাহলে অবশ্যই একটি ভাল ফলাফল করতে পারবেন এবং এখান থেকে লক্ষ্যে পৌছাতে পারবেন। 

এতক্ষণ সাথে থেকে এই লেখাটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানিয়ে আজকে এখানেই শেষ করছি ভালো থাকবেন সবাই।

বুস্ট করতে এখনি কল করুনঃ

আমাদের অফিসের ঠিকানা - 

জমজম আইটি, ২৪২, দড়িখরবোনা, কাদিরগঞ্জ, (৩য় তলা - পূর্ব সেকশন), বোয়ালিয়া-৬২০২, রাজশাহী। শুক্রবার ও সরকারি ছুটির দিন ছাড়া প্রতিদিন সকাল ০৯টা থেকে রাত ০৮টা পর্যন্ত খোলা থাকে। 

মোবাইলঃ +8801303992587

হোয়াটসঅ্যাপ: +8801303992587

স্কাইপ: badol.rahman9

ফেসবুক পেজ: https://www.facebook.com/Zamzamitinstitute

ইউটিউব চ্যানেল: https://www.youtube.com/@TechProVlog

ইমেইলঃ  zamzamit63@gmail.com

ওয়েবসাইটঃ https://www.zamzamit.com

গুগল ম্যাপ লোকেশন: https://goo.gl/maps/yDwtajH8Gh9xMbYa8

Thank You

এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

জমজম আইটিরনীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url